Skip navigation (access key S)

Access Keys:

আমার সাইট ভিজিট গোপন রাখুন

এখুনি কারুর সাথে কথা বলতে চান?

  • বিনীমূল্য, গোপনীয় আইন সংক্রান্ত পরামর্শ প্রাপ্ত করুন

    08001 225 6653এ কল করুন
  • সোমবার থেকে শুক্রবার, সকাল 9 টা থেকে বিকেল 8:00
  • শনিবার, সকাল 9টা থেকে দুফুর 12.30 পর্যন্ত
  • প্রতি মিনিট/4পী’র দর থেকে কল করুন – কিংবা এমন ব্যবস্থা করুন যাতে আমরা আপনাকে ফেরত ফোন করতে পারি

আপনার এলাকাতে একটি আইন সংক্রান্ত পরামর্শদাতা কে খুঁজুন

36. বিচ্ছেদের পর বাচ্চাদের জন্য সাধারণত কী ব্যবস্থা করা হয়?

কোনো সহবাসী বা কাপলের যখন বিচ্ছেদ হয় তখন সেই সম্পর্কের কোনো বাচ্চা থাকলে তাদের উপরেও এর প্রভাব পড়ে| আপনার এবং আপনার সঙ্গীর এই কঠিন সময়ের মধ্যে বাচ্চাদের কথা এবং তারা কী ভাবছে তার কথা মনে করা খুবই জরুরি|

বাচ্চারা শক্ত হয়| তারা তাদের জীবনে যা পরিবর্তন আসবে সেই অনুযায়ী বদলে যাবে, যদি তাদের বলে দেওয়া হয় কী ঘটতে চলেছে, কিন্তু আপনার উচিত নিশ্চিত করা যে তাদের ঝগড়াঝাটি ও বিবাদ থেকে দূরে রাখা হয়|

মনে রাখার চেষ্টা করবেন যে আপনার এবং আপনার সঙ্গীর মধ্যে নিবিড় সম্পর্ক শেষ হওয়া সত্ত্বেও আপনারা দুইজনেই বাচ্চাটির পিতামাতা বা প্যারেন্ট এবং এই চলতি সম্পর্কের মধ্যে একটি চলনসই ব্যবস্থা খুঁজে বের করা আপনাদের দরকার| বাচ্চাদের পক্ষে সবচেয়ে ভাল হয় যদি তারা দেখে যে তাদের পিতামাতা মানিয়ে চলার চেষ্টা করছেন এবং একসাথে তাদের সম্পর্কিত ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন|

বিচ্ছেদের পর বাচ্চাদের জন্য সাধারণত কী ব্যবস্থা করা উচিত সে ব্যাপারে কোনো আইন নেই| প্রত্যেকটি পরিবার আলাদা এবং আপনাদের নিজেদের মধ্যে ঠিক করে নিতে হবে কোন ব্যবস্থা আপনাদের পক্ষে সবচেয়ে ভাল হয়|

বেশিরভাগ ব্যক্তিই এই ব্যাপারে সহমত যে বাচ্চারা তাদের দুইজন প্যারেন্টের সাথে সম্পর্ক থাকলেই সাধারণত লাভবান হয়| সাধারণভাবে বাচ্চাদের প্রধান বাড়ি হয় একজন প্যারেন্টের সাথে (যাকে বলা হয় রেসিডেন্স) এবং তারা অন্য প্যারেন্টের সাথে সময় কাটায় (যাকে বলা হয় কন্ট্যাক্ট)| ভাগাভাগি করে বাসস্থানে থাকার (বা শেয়ার্ড রেসিডেন্স) ব্যবস্থাও সম্ভব, যার অর্থ এই যে বাচ্চারা দুইটি বাসস্থানের মধ্যে সময় ভাগাভাগি করে থাকতে পারে| দুইটি বাড়িতেই যে একই পরিমাণ সময় থাকতে হবে এমন কোনো কথা নেই|

কন্ট্যাক্টের পরিমাণ কতোটা হওয়া উচিত সে ব্যাপারে কোনো আলাদা নিয়ম নেই| প্রত্যেকটি পরিস্থিতি আলাদা| কোন ব্যবস্থা সবচেয়ে ভাল তা প্রতি পরিবারের ক্ষেত্রে ভিন্ন হবে| কন্ট্যাক্টের পরিমাণ প্রচুর হতে পারে এবং তার মধ্যে বাচ্চারা রাতে থাকতেও পারে| এটি পরিবারের অন্য কোনো সদস্যের অথবা এর সাথে সংযুক্ত নন এমন কোনো তৃতীয় ব্যক্তির নজরদারির মাধ্যমেও করা যেতে পারে, যদি অন্য প্যারেন্টের তরফ থেকে বাচ্চাদের কোনো ক্ষতি হবার সম্ভাবনা থাকে| বাড়াবাড়ি পরিস্থিতির ক্ষেত্রে শুধুমাত্র অপ্রত্যক্ষ কন্ট্যাক্টে সীমাবদ্ধ করা হতে পারে| এর অর্থ যে চিঠি, কার্ড বা উপহার পাঠানো যেতে পারে কিন্তু মুখোমুখি দেখা হয় না| সবচেয়ে ভাল হয় যদি বাচ্চাদের জন্য কী ব্যবস্থা করবেন তা আপনারা নিজেদের মধ্যে ঠিক করে নিতে পারেন| তবে আপনাদের পক্ষে যদি তা করা সম্ভব না হয় তাহলে আপনারা কী কী করতে পারেন সে সম্বন্ধে পরামর্শ নিতে পারেন|

আপনাদের বিচ্ছেদের পর বাচ্চাদের জন্য আর্থিক সহায়তার বিষয়টি (যাকে বলা হয় মেনটেনান্স) নিয়ে ভাবনাচিন্তা করতে হবে| বাচ্চাদের প্রধান বাস করার জায়গা যে প্যারেন্টের সাথে নয় (যাকে বলা হয় এবসেন্ট প্যারেন্ট), তার কর্তব্য অন্য প্যারেন্টকে মেনটেনান্স দেওয়া|

এর পরিমাণ কতো হবে তা চাইল্ড সাপোর্ট এজেন্সি হিসাব করে দেখবেন, এবং এই বিষয়ে তাদের ওয়েবসাইটে মূল্যবান তথ্য দেওয়া আছে|

উপরে ফেরত যান